ইমরানকে সরাতে ‘বিদেশি ষড়যন্ত্র’, পাকিস্তানের বিবৃতিকে স্বাগত জানাল যুক্তরাষ্ট্র

ইমরানকে সরাতে ‘বিদেশি ষড়যন্ত্র’, পাকিস্তানের বিবৃতিকে স্বাগত জানাল যুক্তরাষ্ট্র

ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরাতে কোনো বিদেশি ষড়যন্ত্র ছিল না বলে পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা কমিটি (এনএসসি) যে বিবৃতি দিয়েছে, সেটিকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের উপমুখপাত্র জেলিনা পোর্টার সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানিয়েছেন বলে ডনের খবরে বলা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জেলিনা পোর্টারকে এক সাংবাদিক জিজ্ঞাসা করেন, পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এনএসসি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে ছিলেন জেষ্ঠ্য সেনা ও সরকারি কর্মকর্তারা। এতে যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের বিরুদ্ধে ইমরান খানের অভিযোগ নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকের যে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি আমরা পেয়েছি তাতে বলা হয়েছে, ইমরান খানের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের বিদেশি ষড়যন্ত্র ছিল না। আপনি বিষয়টি কীভাবে দেখেন?

জবাবে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এ উপমুখপাত্র বলেন, আমরা এ বিবৃতিতে স্বাগত জানাই।

শুক্রবার পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির (এনএসসি) বৈঠক শেষে জানানো হয়, ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরাতে কোনো বিদেশি ষড়যন্ত্র ছিল না

প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের সাবেক রাষ্ট্রদূত আসাদ মজিদ, জয়েন্ট চিফ অব স্টাফ কমিটির চেয়ারম্যান জেনারেল নাদিম রাজা, সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল মুহাম্মদ আমজাদ খান নিয়াজি, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল জহির আহমাদ বাবরসহ জ্যেষ্ঠ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সম্পর্কে বিবৃতিতে বলা হয়, ওয়াশিংটনে পাকিস্তান দূতাবাস থেকে পাওয়া টেলিগ্রামের বিষয়ে আলোচনা করেছে এনএসসি। যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের সাবেক রাষ্ট্রদূত তার পাঠানো টেলিগ্রামের প্রেক্ষাপট ও বিষয়বস্তু কমিটিকে অবহিত করেছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, এনএসসি রাষ্ট্রদূতের পাঠানো ‘তারবার্তার বিষয়বস্তু’ খতিয়ে দেখেছে। সর্বশেষ বৈঠকে নেওয়া সিদ্ধান্তগুলো পুনর্ব্যক্ত করেছে এনএসসি।

এতে বলা হয়, প্রধান নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর মাধ্যমে এনএসসি আবারও অবহিত হয়েছে যে তারা কোনো ধরনের ষড়যন্ত্রের কোনো তথ্যপ্রমাণ পায়নি। কোনো বিদেশি ষড়যন্ত্র হয়নি—সভা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে।