সাকিবকে হত্যার হুমকি দেওয়া যুবককে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান

সাকিবকে হত্যার হুমকি দেওয়া যুবককে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান

সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ক্রিকেটে ফেরার অনুমতি পেয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ইতোমধ্যেই নিজেকে তৈরি করতে অনুশীলনে ঘাম ঝরাচ্ছেন এ ক্রিকেটার। তবে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় এ ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব পেলেন হত্যার হুমকি। ফেসবুক লাইভে রাম দেখিয়ে সাকিবকে হত্যার হুমকি দেয় এক ব্যক্তি।

সাকিবকে হত্যার হুমকি দেওয়া ব্যক্তির নাম মহসিন তালুকদার। রবিবার রাত ১২টার দিকে ফেসবুক লাইভে এসে সাকিবকে হত্যার হুমকি দেন সিলেটের সদর উপজেলার শাহপুর তালুকদার পাড়ার আজাদ বক্স তালুকদারের ছেলে মহসিন তালুকদার। এসময় মহসিন নামের ওই ব্যক্তি হাতে রাম দা নিয়ে সাকিবকে কুপিয়ে মেরে ফেলার কথা বলেন।

এদিকে সাকিবকে হত্যার হুমকির ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে সিলেট মহানগর পুলিশ। ওই যুবককে গ্রেপ্তার করতে অভিযানে নেমেছে এসএমপি পুলিশ।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) বি এম আশরাফ উল্ল্যাহ তাহের বলেন, তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া যুবককে গ্রেপ্তারে অভিযানে নেমেছে পুলিশ। বিষয়টি নজরে আসার পরপরই পুলিশের সকল বাহিনী হুমকিদাতাকে গ্রেপ্তারে মাঠে নেমেছে।

এছাড়া এ বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অকিল উদ্দিন আহমদ বলেন, ঘটনাটি জানার পর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করেছি। হুমকিদাতাকে গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানে রয়েছে।

নিষেধাজ্ঞা থাকায় গত এক বছর গণমাধ্যমের সামনে আসতে পারেননি সাকিব। তাই নিষেধাজ্ঞা শেষে বেশ কিছু সামাজিক ও ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়েছেন। সম্প্রতি কলকাতায় একটি কালীপূজা মন্দিরে উদ্বোধন করতে যান সাকিব।

এরপর থেকে ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে অনেকে। গত কদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাকিবকে নিয়ে আলোচনা হয়েছে পক্ষে-বিপক্ষে। তবে এমন হত্যার হুমকিও দিবে সেটা কে জানে। কলকাতায় পূজা উদ্বোধনে যাওয়া নিয়ে তাকে কুপিয়ে টুকরো করে ফেলার কথা বলেন মহসিন নামের ওই যুবক।

এসময় সাকিবকে গালাগালি করে মহসিন বলেন, সাকিবকে হত্যা করতে প্রয়োজনে হেঁটেই ঢাকা যাবেন। মধ্যরাতে এমন হুমকি দেয়ার পর অবশ্য শেষ রাতে আবারও লাইভে এসে ক্ষমা ও দুঃখ প্রকাশ করেন মহসিন নামের ওই ব্যক্তি।

গত ২৯ অক্টোবর এক বছরের নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্ত হয়ে সাকিব দেশে ফিরেন গত ৫ নভেম্বর মধ্যরাতে। পরদিন সকালে একটি সুপার শপের উদ্বোধন করতে গিয়ে আবারও সমালোচনায় পড়েন কোয়ারেন্টিন না মেনে।