তীব্র আপত্তি সত্বেও ইরানের সঙ্গে চুক্তি বাইডেন!

তীব্র আপত্তি সত্বেও ইরানের সঙ্গে চুক্তি বাইডেন!

হোয়াইট হাউসে ক্ষমতা হ’স্তান্ত’রের পর ইরানের সঙ্গে আ’ণবি’ক চুক্তিতে ফিরতে পারেন জো বাইডেন। এমনটাই মনে করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ইউনিয়নের বি’দেশনী’তি বিষয়ক প্রধান জোসেপ বোরেল একটি মার্কিন দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এই আশা ব্যক্ত করেন।

এদিকে, তেহরানের সঙ্গে আণবিক চুক্তিতে ফিরলে ভুল করবেন বাইডেন বলে সতর্কবার্তা দিয়েছে ইজরায়েল। বোরেল বলেন, ”বাইডেন ওয়াশিংটনকে তার অতীতে ফেরত নিয়ে যেতে পারলে তা ভাল খবর হবে। তবে নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন যে এখনই অভাবনীয় কিছু করে ফেলবেন এমন কিছুও ইইউ আশা করে না।

ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর আমেরিকাকে যেসব দ্বিপাক্ষিক ও আন্তর্জাতিক চুক্তি থেকে বের করে নিয়েছিলেন বাইডেন সেসব চুক্তিতে আবার ফিরে যেতে পারেন।” ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিদেশনীতি বিষয়ক প্রধান হিসেবে বোরেলের পূর্বসুরি ফেডেরিকা মোগেরিনি ২০১৫ সালে ছয় দেশের সঙ্গে ইরা’নের প’রমা’ণু সমঝোতা স্বাক্ষরে মধ্যস্থতার ভূমিকা পালন করেছিলেন।

মার্কিন দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বোরেল দাবি করেন, আমেরিকা এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও ইউরোপ ইরানের সঙ্গে এই চুক্তিতে বহাল রয়েছে। ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালের মে মাসে এই সমঝোতা থেকে আমেরিকাকে বের করে নেন। গত ৩ নভেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন আমেরিকাকে ইরানের পরমাণু সমঝোতা-সহ সব দ্বিপাক্ষিক ও আন্তর্জাতিক চুক্তিতে ফিরে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ‘ইসলামিক বিপ্লব’-এর সময় থেকেই ইরান-আমেরিকা সম্পর্ক আদায়-কাঁচকলায়। তেহরানে নেই কোনও মার্কিন দূতাবাসও। ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক আর্থিক নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এহেন পরিস্থিতিতে হোয়াইট হাউসে পটপরিবর্তন প্রক্রিয়ায় তীক্ষ্ণ নজর রেখেছে তেহরান।