আবারো উল্টো পথে যুবলীগ ; ভালো বর্জন, খারাপ আলিঙ্গন!

আবারো উল্টো পথে যুবলীগ ; ভালো বর্জন, খারাপ আলিঙ্গন!

আগামী ১১ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা শহরে যুবলীগের নেতাদের ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে। এই ব্যানার-ফেস্টুনগুলো রাজধানীতে নতুন আবর্জনা সৃষ্টি করেছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নানা কারণে বিকর্তিক। বিশেষ করে যুবলীগের বি’রুদ্ধে ক্যাসিনো বাণিজ্য ও কমিটি বাণিজ্যের অভিযোগ ছিলো। কিন্তু ওমর ফারুক চৌধুরী ও হারুন অর রশীদের নেতৃত্বে যুবলীগ অনেকগুলো ভালো কাজ করেছে।

এখন শেখ ফজলে শামস পরশ ও মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নেতৃত্বের যুবলীগ সেই ভালো কাজগুলোকে বর্জন করছে এবং খারাপগুলোকেই আলিঙ্গন করছে। ওমর ফারুক চৌধুরী এবং হারুন অর রশীদের নেতৃত্বে যুবলীগ যে ভালো কাজগুলো করেছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কাজটি ছিলো, রাস্তায় ব্যানার-ফেস্টুন বন্ধ করে দেয়া।

যুবলীগের তৎকালীন চেয়ারম্যানের এই সিদ্ধান্ত সকল মহলে প্রশংসিত হয়েছিলো এবং স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন যে, এই সিদ্ধান্ত অত্যন্ত ভালো। এভাবে রাস্তাঘাট নোংরা করার প্রবণতা বন্ধ করা যুবলীগের ইতিবাচক পদক্ষেপ।

সেসময় ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলো রাস্তায় ব্যানার-ফেস্টুন না লাগানোর জন্য। সেই সিদ্ধান্ত প্রতিপালনের ক্ষেত্রে পথনির্দেশনাকারী সংগঠন ছিলো যুবলীগ। এখন দেখা যাচ্ছে পরশ-নিখিলের নেতৃত্বের যুবলীগ, সেই ভালো কাজ থেকে সরে এসে পুরো ঢাকা শহরকে পোস্টার-ব্যানার দিয়ে সয়লাব করছে।

যুবলীগের আরেকটি ভলো কাজ ছিলো, তারা ক্রোড়পত্র ও প্রকাশনা করতো। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীসহ অন্যান্য দিবসে তাদের ক্রোড়পত্রগুলো ছিলো আলোচনার বিষয় এবং বিভিন্ন মহলে এটি প্রশংসিত হয়েছিলো। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে যে, যুবলীগের বর্তমান নেতৃত্ব সেই প্রকাশনার দিকে না গিয়ে সস্তা ব্যানার-ফেস্টুনের দিকে বেশি ঝুঁকছে।

তৎকালীন যুবলীগের আরেকটি ভালো কাজ ছিলো, বিপুল পরিমাণ প্রকাশনা করা। তারা ১০০টির বেশি প্রকাশনা তৈরি করেছিলো। এখন দেখা যাচ্ছে যুবলীগের বর্তমান নেতৃত্ব প্রকাশনার দিকে মনোযোগ নেই। কাজেই যে বিতর্কের কারণে যুবলীগকে পরিচ্ছন্ন করা এবং সুস্থ রাজনীতির চর্চা করার জন্য নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে, সেই কমিটি পূর্বপথেই হাটছে কিনা সেই প্রশ্নই রয়েছে।