সীমান্তে বিপুল সৈন্য ও সামরিক সরঞ্জাম জড়ো করছে চীন!

সীমান্তে বিপুল সৈন্য ও সামরিক সরঞ্জাম জড়ো করছে চীন!

সাম’রিক-কূটনৈতিক আ’লোচনার মাধ্যমে লা’দাখের উ’ত্তেজনাস্থল থেকে সেনা স’রিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে ভারত ও চীন। তবে এরইমধ্যে চীনের পিপলস লি’বারেশন আ’র্মি (পিএলএ) লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি)-এর কাছে তিব্বতের আকসাই চিন ও শিনঝিয়াং অঞ্চলে নতুন অবকাঠামো নির্মাণ এবং সেনা ও সরঞ্জাম নতুন জায়গায় সরিয়ে নিচ্ছে।

চীনের তৎপরতায় মনে হচ্ছে অন্তত এবারের শীতে সীমান্ত থেকে সেনা সরিয়ে নেয়ার কোনো ইচ্ছা তাদের নেই। ভারতের সিনিয়র সেনা কর্মকর্তারা বলছেন যে তারা গোগরা-হট স্প্রিং এলাকার পাশে আকসাই চীনে চারটি ফুটবল মাঠের সময় প্রায় ৩ লাখ বর্গ ফুট এলাকাজুড়ে বিশাল স্থাপনা নির্মাণ করতে দেখতে পেয়েছেন। এটা এলএসি থেকে ১০ কিলোমিটারের মতো দূরত্বে হতে পারে।

এক অবসরপ্রাপ্ত সেনাপ্রধানের মতে এই অতিকায় স্থাপনাটি সেনাদের আবাস, কামান, রকেট রেজিমেন্ট ও ট্যাংক রাখার জায়গা হিসেবে ব্যবহার করা হতে পারে। কারণ মেরু-শীতল তাপমাত্রায় ট্যাংক ও কামান জমে যায় এবং সেগুলোর ব্যারেল ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। এলএসি’র খুব কাছাকাছি হওয়াও এই স্থাপনা হাসপাতাল হিসেবেও ব্যবহার করা হতে পারে। প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় নানারকম শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে সেনাদের।

এলএসি থেকে ৮২ কিলোমিটার দূরে শিনঝিয়াং এলাকায় ক্যামোফ্লেজ করা আচ্ছাদনের নিচে নতুন যান ও সরঞ্জাম মোতায়েন করা দেখতে পেয়েছেন ভারতীয় সেনা কর্মকর্তারা। আকসাই চিনের ভিতরে এলএসি থেকে ৯২ কিলোমিটার দূরে সেনা ও সরঞ্জাম স্থানান্তরের দৃশ্যও ভারতীয় পাশ থেকে দেখা গেছে। এছাড়া লাদাখের দেমচকে তিব্বত অঞ্চলে বিপুল সং’খ্যক পিএলএ যা’নবাহনের আ’নাগোনা চোখে পড়েছে।

এটা স্পষ্ট যে এলএসি’র ৮ থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে বসে আকসাই চিন থেকে পিএলএ’র গো’য়েন্দারা গা’লওয়ান অঞ্চল ও কঙ্কা লা এলাকার উপর নজর রাখছে। চীন-ভারত সীমান্ত থেকে ১৬৬ কিলোমিটার দূরে শিনঝিয়াংয়ের হুতান ও কানশিওয়ারের মধ্যে নতুন সড়ক তৈরি করছে পিএলএ। এই সড়ক আকসাই চিনে সেনা ও সরঞ্জাম আনা-নেয়ার বিকল্প রুট হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

হুতান বিমান ঘাঁটিতে চীন বিমানে করে রসদ পাঠাচ্ছে। এটি এলএসি থেকে ৩২০ কিলোমিটার দূরে। পিএলএ’র তৎপরতা শুধু লাদাখেই সীমা’বদ্ধ নেই। এ বিষয়ে অবগত কর্মকর্তারা বলছেন যে, অরুনাচল প্রদেশে এলএসি থেকে ৬০ কিলোমিটার দূরে কাউন্টার-স্পেস জ্যামার বসিয়েছে পিএলএ। শ’ত্রুপক্ষ যেন স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পিএলএ সেনাদের গতিবিধির উপর নজর রাখতে না পারে সেজন্য এই য’ন্ত্র বসানো হয়েছে।

আকাশ পথে আসা হুমকি মোকাবেলায় পিএলএ অরুনাচল প্রদেশের কাছাকাছি চীনের নাইয়িংচি সিটিতে রাশিয়ার তেরি এস-৪০০ ক্ষে’পনা’স্ত্র ব্যবস্থা মো’তায়েন করেছে বলে জানা গেছে। পিএলএর মনোভাব নিয়ে ভারতের সার্বিক মূল্যায়ন হলো ঘাঁটি ও ডিপো তৈরি করে চীন সীমান্ত এলাকায় অবস্থান মজবুত করছে।