আবারো উত্তেজনা : নতুন করে ভারতকে চরম হুঁশিয়ারি চীনের !

আবারো উত্তেজনা : নতুন করে ভারতকে চরম হুঁশিয়ারি চীনের !

সীমান্ত নিয়ে চীনের সঙ্গে চলমান উ’ত্তেজনার মধ্যে তাইওয়ান নিয়ে ভারতের নয়া কৌশল দেশটির জন্য বি’পদ ডেকে আনতে পারে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে চীন। ভারত সম্প্রতি প্রথমবারের মতো তাইওয়ানের জাতীয় দিবস বেশ ধূ’মধামের সঙ্গে পালণ করেছে। এর ফলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে ভারত তাদের ‘এক চীন’ নীতি পুনর্বিবেচনা করবে কি না।

এর আগে তাইওয়ানকে আলাদা দেশ হিসেবে উল্লেখ না করতে চীনা দূতাবাস ভারতীয় মিডিয়াকে যে পরামর্শ দিয়েছিল সেটাও ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় খারিজ করে দিয়েছে। শুক্রবার বর্তমান এই প’রিস্থিতি নিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া ট্যুডে’কে এক সাক্ষাৎকার দিয়েছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোসেফ উু। সেখানে তিনি তাইওয়ানকে কার্ড হিসেবে খেললে ভারতকে মূল্য দিতে হতে পারে বলে মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘তাইওয়ান প্রশ্নটি এমন কোনো কার্ড নয় যা ভারত সী’মান্ত ই’স্যুতে চীনের সঙ্গে দর ক’ষাক’ষির ক্ষেত্রে গু’টি হিসাবে কাজে লাগাতে পারে।’ জোসেফ উু বলেন, ‘এক চীন’ নীতিকে সমর্থণ দেয়ার মাধ্যমে ভারত ‘তাইওয়ান স্বাধীনতা’ বাহিনীকে সমর্থন না করার ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

এছাড়া পারস্পরিক সমঝোতা অনুযায়ী চীনও ভারতের বি’চ্ছি’ন্নতাবাদী শক্তিকে সমর্থন না করার ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ‘তাইওয়ানের বি’চ্ছন্নতাবা’দীরা ও ভারতের বি’চ্ছিন্নতাবা’দীরা একই শ্রেণীর। ভারত যদি তাইওয়ান নিয়ে খেলতে চায়, তবে ভারতের সতর্ক থাকা উচিত যে চীনও একই কাজ করতে পারে।’

ভারতের সেনাবাহিনীর উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ‘ভারতীয় সেনাবাহিনী জানিয়েছে যে, তারা বর্তমানে ত্রিমুখী সং’ঘ’র্ষে লি’প্ত র’য়েছে। একটি পাকিস্তান, আরেকটি চীন ও অপরটি নিজেদের অভ্যন্তরীন বি’চ্ছিন্নতবা’দের সঙ্গে। ভারত যদি তাইওয়ানের স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেয়ার পথে পা বা’ড়ায়, তবে চীনেরও অধিকার রয়েছে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ত্রিপুরা, মেঘালয়া, মিজোরাম, মনিপুর, আসাম ও নাগাল্যান্ডে সক্রিয় থাকা বি’চ্ছিন্নতাবা’দীদের সহায়তা দেবার।

এমনি সিক্কিমের পুনরু’ত্থানের বিষয়েও চীন সমর্থণ দিতে পারে।’ জোসেফ উু সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘ভারত নিজেদের স্বার্থে তাইওয়ান নিয়ে খেলছে। ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও থি’ঙ্ক ট্যাং’কও এতে যোগ দিয়েছে এবং চীনকে পা’ল্টা পদক্ষেপ নিতে চাপ প্রয়োগ করছে। ভারতের পক্ষ থেকে যদি তাইওয়ান নিয়ে এই খেলা বন্ধ করা না হয়, তাহলে তাদেরকেও নিজেদের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অংশে বি’দ্রোহ এবং বি’শৃঙ্খলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।’