হঠাৎ কেন খালেদা জিয়ার প্রতি নমনীয় শেখ হাসিনা!

হঠাৎ কেন খালেদা জিয়ার প্রতি নমনীয় শেখ হাসিনা!

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মনে হচ্ছে তিনি খালেদা জিয়ার প্রতি নমনীয়। যিনি ১৭ বছরের জন্য কা’রাগারে দ’ণ্ডিত হয়েছেন, তাকে নির্বাহী আদেশে দণ্ড স্থগিত করে ৬ মাসের জন্য জামিন দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এখন আবার নতুন করে ৬ মাস মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হচ্ছে।

বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে এটি শুধু বিরল ঘটনা নয়, অভাবনীয় একটা ঘ’টনাও বটে।বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়া শেখ হাসিনার এমন একজন প্রতিপক্ষ, যে কেবল রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ নয়। বেগম খালেদা জিয়া পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে তাঁর ভুয়া জন্মদিন পালন করতেন। দীর্ঘদিন এই বিভৎস কেক কাটার উৎসব করে তিনি বঙ্গবন্ধুর প্রতি চরম অবমাননা প্রকাশ করতেন।

বেগম খালেদা জিয়া একানব্বইয়ের সরকার প্রধান হয়ে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করেননি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর হ’ত্যাকা’ণ্ডের বিচারের কোন উদ্যোগ তিনি নেননি। বরং বেগম খালেদা জিয়া একানব্বই সালে দায়িত্ব গ্রহণ করে পঁচাত্তরের আত্নস্বীকৃত খুনীদের পৃষ্টপোষকতা দিয়েছেন। তাদের চাকরিতে পদোন্নতি দিয়েছেন।

১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনে তাদেরকে অংশগ্রহণের সুযোগ দিয়ে পবিত্র সংসদে নিয়ে এসে ক’লংকিত করেছেন। বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়েই একুশে আগস্টের বি’ভৎস গ্রে’নে’ড হা’ম’লার ঘ’টনা ঘ’টেছে। বেগম খালেদা জিয়া কেবল রাজনৈতিকভাবে শেখ হাসিনাকে পরাস্থ করতে চাননি, বরং স’ন্ত্রা’স এবং অ’পরাজনীতির মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে নিঃ’শেষ করতে চেয়েছিলেন।

আর এ কারণেই বাংলাদেশের রাজনীতিতে যে সৌজন্যতা এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ- সেই জায়গাটি অপসারিত হয়ে গিয়েছিলো। শেখ হাসিনা সেই জায়গাটি আবার নতুন করে প্রতিষ্ঠিত করতে যাচ্ছেন। তার চরম প্রতিপক্ষ, যিনি রাজনৈতিকভাবে নয়, পেশীশক্তির মাধ্যমে তাকে নিঃশেষ করতে চান, তার প্রতিই উদারতা দেখাচ্ছেন শেখ হাসিনা।

রাজনৈতিক অঙ্গনে তাই বড় প্রশ্ন, খালেদা জিয়ার প্রতি শেখ হাসিনা নমনীয় কেন? এর উত্তরগুলো খুঁজতে গিয়ে দেখা যায় যে, অনেকগুলো কারণ রয়েছে। যে কারণগুলো হয়তো শেখ হাসিনাকে এরকম নমনীয় হতে উদ্বুদ্ধ করেছে। এর মধ্যে যে প্রধান ৫ টি কারণ রয়েছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, তা হলো;

বঙ্গবন্ধুর স্নেহ: বিশিষ্ট পরমানু বিজ্ঞানী এবং শেখ হাসিনার প্রয়াত স্বামী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে একটা অনন্য গ্রন্থ রচনা করেছেন। সেই গ্রন্থটির শিরোনাম হলো ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে ঘিরে কিছু ঘটনা ও বাংলাদেশ’।

সেই গ্রন্থে স্বাধীনতার পর খালেদা জিয়ার সম্পর্কে কিছু কথা বলা হয়েছে, মুক্তিযু’দ্ধের পর বেগম খালেদা জিয়াকে ঘরে নিতে চাননি তার স্বামী জিয়াউর রহমান। বঙ্গবন্ধু তাদেরকে বাড়িতে দাওয়াত দিয়েছিলেন, দাওয়াত দিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে জিয়াউর রহমানের যে বিরোধ তা মিটিয়ে দিয়েছিলেন।

সেখানে ওয়াজেদ মিয়া এটাও উল্লেখ করেছেন যে, বঙ্গবন্ধু তাকে শাড়ি উপহার দিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতিও একাধিক বক্তৃতায় এই ঘটনাটির স্মৃতিচারণ করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু সবচেয়ে ভালো শাড়িটি খালেদা জিয়াকে দিয়েছিলেন। কাজেই বঙ্গবন্ধুর যে উদারতা এবং স্নেহ, সেটিকে ধারণ করেন শেখ হাসিনা। এ কারণেই খালেদা জিয়ার প্রতি তিনি রুঢ় আচরণ বা প্র’তিহিং’সাপরায়ণ হননি বলে অনেকে মনে করেন।