কঠিন ৫ চ্যালেঞ্জের মুখে শেখ হাসিনা !

কঠিন ৫ চ্যালেঞ্জের মুখে শেখ হাসিনা !

টানা তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার দায়িত্ব পালন করছে। কিন্তু প্রথম দুই মেয়াদে যেভাবে আওয়ামী লীগ যে রকম স্বস্তি ভাব নিয়ে দেশ পরিচালনা করেছে। কিন্তু তৃতীয় দফায় একের পর এক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারকে। তৃতীয় মেয়াদে দায়িত্ব পালনের পর থেকেই বিভিন্ন রকম সমস্যা এবং সংকটকে নিয়েই সরকার পরিচালনা করতে হচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকারকে।

এই চ্যালেঞ্জগুলো বেড়েছে, করোনা পরিস্থিতির পর থেকে আরও বেশি। গত মার্চ থেকে বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হয় এবং এই সময় থেকে একদিকে যেমন জনস্বাস্থ্যের চ্যালেঞ্জ অন্য দিকে অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জসহ নানা পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতিগুলো মোকাবেলা করতে সরকারকে হিম শিম খেতে হচ্ছে।

সরকারের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বলেছেন, কিছু কিছু চ্যালেঞ্জ যেগুলো অনুমিত, যে চ্যালেঞ্জ গুলোকে মোকাবেলা করে একটি সরকারকে দায়িত্ব পালন করতে হয়। কিন্তু কিছু কিছু চ্যালেঞ্জ আসছে হটাৎ করে, যেগুলো মোকাবেলা করার ক্ষেত্রে সরকারকে সমস্যায় পরতে হচ্ছে।

সরকারের জন্য একই চ্যালেঞ্জ দীর্ঘদিন থাকছে না, নিত্যনতুন চ্যালেঞ্জ সামনে চলে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের জন্য যে প্রধান ৫ টি চ্যালেঞ্জ রয়েছে, বলে সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা মনে করছেন, সেই চ্যালেঞ্জগুলোর মধ্যে রয়েছে–

১। ভারতের সাথে সম্পর্ক: আওয়ামী লীগ সরকাররের জন্য এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ দেখা হচ্ছে, ভারতের সাথে সম্পর্ক নিয়ে। ভারতের সাথে টানাপোড়নের কথা আগে বলা হতো। এখন এটি প্রকাশ্য হচ্ছে। বিশেষ, করে পেঁয়াজ নিয়ে যেই ঘটনাটি ঘটেছে; সেটি দুই দেশের সম্পর্কে যে অস্বস্তি, তারই বহিঃপ্রকাশ বলে কেউ কেউ মনে করছেন। তাছাড়া, বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধি ভারত ভালো ভাবে দেখছে না।

এই রকম কথা এখন প্রকাশ্যে হচ্ছে। আর ভারত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রতিবেশী। এই প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখাটা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য অত্যন্ত জরুরী, বলে মনে করে বিশ্লেষকরা। সে কারণেই ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক একটি ভারসাম্য পূর্ণ পর্যায়ে রাখা এবং এই সম্পর্ককে অটুট রেখেই চীনের সাথেই অর্থনৈতিক সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া- সরকারের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ, বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

২। পেঁয়াজসহ দ্রব্য মূল্যের ঊর্ধ্বগতি: করোনা সংকটের শুরু থেকেই সরকার অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলার জন্য কাজ করছে। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেকটা সফলও হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যেই জিনিস পত্রের মূল্য বৃদ্ধি জনগণের মধ্যে এক ধরনের অস্বস্তি, উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা তৈরি করেছে। বিশেষ করে,

সাম্প্রতিক সময়ে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি এবং তার সঙ্গে মিলিয়ে চালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দামের উর্ধগতি মানুষের জন্য খুবই কষ্টদায়ক, বলে মনে করা হচ্ছে। এমনিতেই মানুষ অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে রয়েছে। এর মধ্যে জিনিসপত্রের দাম তাদের এই সংকটকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। এই জিনিসপত্রের দামকে সহনীয় পর্যায়ে রাখা একটি বড় চ্যালেঞ্জ, বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

৩। অভিবাসীদের ফেরত পাঠানো: গত কয়েক দিন ধরেই সৌদি প্রবাসীদের ফেরত পাঠানো নিয়ে অনেক রকম নাটক হয়ে গেল। শেষ পর্যন্ত সরকার অতন্ত্য দক্ষতার সঙ্গে এই বিষয়টি মীমাংসা করেছেন। এখনও বহু দেশের অভিবাসীরা করোনার কারণে বাংলাদেশে আটকা পড়ে আছেন, তারা বিদেশে যেতে চান। মনে রাখতে হবে যে, অভিবাসী শ্রমিকদের পাঠানো রেমিট্যান্স আমাদের অর্থনীতির একটি বড় শক্তি।

কাজেই অভিবাসীদের নিয়ে যেন কোন সমস্যা না হয়। অভিবাসীরা যেন আবার ফিরে যেতে পারেন। বাংলাদেশ থেকে বিদেশে অভিবাসীদের যাওয়া যেন বন্ধ না হয়, সেটি দেখ-ভাল করা সরকারের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ এটি সরাসরি আমাদের অর্থনৈতিক সাচ্ছন্দের সঙ্গে সম্পর্কিত। কাজেই সাম্প্রতিক সময়ে সরকার এটিকে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছে।

৪। শিক্ষায় সংকট: মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ। যদিও এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে এখন কিছু ক্লাস হচ্ছে, সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ক্লাস হচ্ছে। কিন্তু এখন পরীক্ষাসহ পুরো প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য শিক্ষা এখন সংকটে পড়েছে। করোনার দ্বিতীয় টেউয়ের কথা বলা হচ্ছে; বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নভেম্বর থেকে আবার করোনা সংক্রমণ বাড়তে পারে।

এ অবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো একটা দীর্ঘ ছুটির ফাঁদে পড়ছে। এই সংকটের ফলে বিপুল সংখ্যক শিশু, কিশোর এবং তরুণদের নিয়ে সরকার একটা সংকটের মধ্যে পড়েছে। এই শিক্ষা সংকট সামনের দিনগুলোতে আরও বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে সরকারের সামনে আসবে, বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

৫। নুরসহ উটকো ইস্যু: এই সমস্ত বিষয় নিয়ে যখন সরকার যখন ব্যতি-ব্যস্ত; সে সময় ডাকসু’র সাবেক ভিপি নুরসহ বিভিন্ন উটকো ইস্যু নিয়ে সরকারকে ব্যতি-ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে। এটি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ শিক্ষাঙ্গনে, নতুন করে অশান্তি তৈরি করার প্রয়াস নিচ্ছে কোন কোন মহল। এটিও সরকারের জন্য একটি মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে উঠছে।

সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বলেছেন, সরকার এখন অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করায় সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। অর্থনীতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই এখন সরকারের লক্ষ্য। কিন্তু তার সাথে সাথে এই চ্যালেঞ্জগুলোর দিকেও দৃষ্টি দিতে হচ্ছে। কারণ অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রা এবং উন্নয়ন ব্যাহত হতে পারে, যদি এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার ক্ষেত্রে কোন রকম সমস্যা হয়। সূত্র: বাংলা ইনসাইডার।