লাদাখ সীমান্তে উড়তে শুরু করছে যু’দ্ধবিমান

লাদাখে সংঘা’তের পর সীমান্তে উ’ত্তেজনা কমানোর জন্য ভারত-চীনের মধ্যে আলোচনার চেষ্টা চলছে। কিন্তু তারপরও আত’ঙ্কে দিন কাটাচ্ছে ভারত, এজন্য তারা সীমান্তে উড়াচ্ছে যু’দ্ধবিমান।

কিন্তু তাতে কী ভ’য় পাবে চীন? সেটা নিয়েও দ্বিধায় ভুগছে মোদি সরকার। তাই সীমান্তের সেনা সংখ্যা বাড়ানোসহ যু’দ্ধবিমানের সংখ্যাও বাড়াচ্ছে দ্রুত গতিতে।

এমন প’রিস্থিতিতে সীমান্তের পাশেই বিমানঘাঁটি থেকেই মাঝে মধ্যেই উড়ে যাচ্ছে সুখোই-৩০এমকেআই, মিগ-২৯এসের মতো যু’দ্ধবিমান। সামরিক ভূমিকা পালনে নিজেদের আরও তৈরি করে নিচ্ছে বিমান বাহিনীর সেনারা।

গালওয়ান সংঘ’র্ষের পর থেকেই লাদাখ এবং সংলগ্ন এলাকায় বেড়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনীর যু’দ্ধবিমান এবং হেলিকপ্টারের আনাগোনা। চীনের সীমান্ত সংলগ্ন সেই বিমান ঘাঁ’টিতেও বেড়েছে তৎপরতা। বাড়ানো হচ্ছে সামরিক প্রস্তুতি।

সে জন্য বায়ুঘাঁটি থেকে প্রায়শই মার্কিন সি-১৭ ও সি-১৩০জে এবং রাশিয়ান ইলুশিন-৭৬ ও অ্যান্তোনোভ-৩২-র মতো বিমান উড়ে যাচ্ছে। পূর্ব লাদাখ সেক্টরে সামরিক প্রস্তুতির জন্য আমেরিকান অ্যাপাচে হেলিকপ্টার ঘো’রাঘুরি করছে।

অপর এক মার্কিন হেলিকপ্টার চিনুকেরও আনাগোনা বেড়েছে। এছাড়াও পুরোদমে ব্যবহার করা হচ্ছে রাশিয়ান এমআই-১৭ ভি৫ কপ্টারও।বিমান ঘাঁ’টির সামরিক প্রস্তুতির সঙ্গে যুক্ত এক উইং কমান্ডার বলেন,

যে কোনও প্রতিকূলতার মুখোমুখি হওয়ার জন্য আমাদের যাবতীয় লোকবল এবং সরঞ্জাম আছে। একইসঙ্গে তিনি আরো জানান, মাটিতে সামরিক অভি’যানের সঙ্গে আকাশপথে যে কোনও সাহায্যের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত বিমান সেনা।