নেপালের কাছে হেরে যাচ্ছে ভারত

নেপালের কাছে হেরে যাচ্ছে ভারত

নেপাল থেকে ভারতের দার্জেলিং পাহাড়জুড়ে বিস্তৃত পূর্ব হিমালয়ের সঙ্ঘা’ত কেবল সীমান্তরেখা নিয়ে নয়, এটি চা উৎপাদনের যুদ্ধও। যুদ্ধটি দার্জেলিং চা বনাম নেপালি চা নিয়ে। উভয়েই দাবি করে আসছে যে তারাই সেরা চা উৎপাদন করে।

কিন্তু কিন্তু দার্জেলিং চা বাগান মালিক ও উৎপাদনকারীরা অভিযোগ করছেন যে করোনাভাইরাসের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে নেপাল তাদের অপেক্ষাকৃত সস্তা চাকে দার্জেলিং চায়ের জনপ্রিয় প্রিমিয়ার চা হিসেবে প্রচার করছে। আর এর ফলে দার্জেলিং চায়ের উৎপাদন পড়ে গেছে।

অবশ্য নেপালিরা এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলছে, যে মানের কথা বলা হচ্ছে, তা দার্জেলিং চা আবাদকারীরা উৎপাদন করতে পারছেন না। কিন্তু অন্যরা যখন তাদের ছাপিয়ে যাচ্ছে, তখন তারা হইচই করছেন।

দার্জেলিং চা শিল্প সূত্র জানাচ্ছে, লকডাউনের কারণে পাহাড়ের ৮৭টি বাগানের সবগুলোর চা গত তিন মাসে হয় শুকিয়ে গেছে কিংবা কারখানাগুলোতে স্তু’পাকারে পড়ে আছে।

কিন্তু নেপালি চা উৎপাদনকারীরা এ ধরনের বিপর্যয়ে পড়েনি। তারা এখন ‘ভেজাল পাতার’ বন্যা বইয়ে দিচ্ছে ভারতের বাজারে। এগুলো আবার দার্জেলিং চা নামেই বিক্রি করা হচ্ছে বলে ভারতীয় আবাদকারীরা অভিযোগ করছেন।

নেপালি চায়ে ভারতের বাজার ভেসে যাওয়ায় ভারতের প্রথম জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশনের (জিআই) ট্যাগযুক্ত কৃষি উৎপাদনটির সুনামও ক্ষুণ্ন হচ্ছে। চা শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট লোকজন সাউথ এশিয়ান মনিটরকে বলছেন

যে নেপালি চা সস্তা হওয়ায় তা দার্জেলিং চায়ের প্রতি হুমকি সৃষ্টি করছে।খুচরা বিক্রেতা, রফতানিকারক ও ব্লে’ন্ডাররা পর্যন্ত বলছেন যে কোনো ভোক্তার পক্ষে দুই ধরনের চায়ের মধ্যে পার্থক্য করা খুবই কঠিন।