জা’মিনে বেরিয়ে ঘুরছে শতাধিক দু’র্ধর্ষ জ’ঙ্গি

জা’মিনে বেরিয়ে ঘুরছে শতাধিক দু’র্ধর্ষ জ’ঙ্গি

বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান আর আগস্ট মাস এলেই জঙ্গিরা তৎপর হয়ে ওঠে। এই চিত্র বেশ কয়েক বছর ধরেই। এবারও ঈদ ও আগস্ট মিলিয়ে জ’ঙ্গিদের তৎপরতার খবর পাওয়া যাচ্ছে। জানা গেছে, বিভিন্ন সময় জামিনে এবং সাজা শেষ করে কা’রাগার থেকে বের হয়ে ঘুরছে শতাধিক দুর্ধর্ষ জ’ঙ্গি। যদিও আই”নশৃঙ্খলা বা’হিনীর তরফ থেকে বলা হয়েছে, যারা বাইরে আছে তাদের সবাইকে মনিটরিংয়ে রাখা হয়েছে। সম্প্রতি কিছু জ’ঙ্গি আ’টক হওয়ার পর নতুন ধরনের হা’মলার পরি’কল্পনার চিত্র সামনে এসেছে। এ কারণে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে সারা দেশের সব ইউনিটে চিঠি দিয়ে জ’ঙ্গিদের ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে।

স্ব’রাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, জঙ্গিদের আমরা নিয়ন্ত্রনে এনেছি, কিন্তু সমূলে উত্পাটন করতে পারিনি। ছোট ছোট ‘স্লি’পিং সেল’ এখনো বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে। সেগুলোর কার্যকারিতা তেমন কিছু নেই। তিনি বলেন, কূটনৈতিক এলাকা ও ধর্মীয় উত্সব স্থলসহ সব জায়গায় নিরাপত্তা ‘বা’হিনী কাজ করছে ও সত’র্ক অবস্থায় রয়েছে। আমি মনে করি, জ’ঙ্গিদের সেই সক্ষমতা, সেই দ’ক্ষতা নেই। বাংলাদেশের মানুষ জ’ঙ্গিদের আশ্রয় প্রশ্রয় দেয় না, তাদের সম্পর্কে সব সময় আমাদের অবহিত করছেন, যে যেখানে নিউজ পাচ্ছেন। এজন্য আমাদের আ’ইনশৃঙ্খলা র’ক্ষা’কারী বা’হিনী জ’ঙ্গি দ’মনে সফল হয়েছিল।

২০১৬ সালে গু’লশানের হলি আ’র্টিজান বেকারিতে হামলার ছয় দিন পর ৭ জুলাই শো’লাকিয়ায় ঈদ জামাতে হামলার চেষ্টা চালিয়েছিল জঙ্গিরা। তখন আ’ইনশৃঙ্খলা র’ক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে জ’ঙ্গিদের সং’ঘর্ষও হয়। এরপর আইন শৃঙ্খলা র’ক্ষা’কারী বা’হিনীর ধা’রাবাহিক অ’ভিযানে জ’ঙ্গি নে’তাদের প্রায় সবাই ধরা পড়ে বা মা’রা যায়। তাতেই জঙ্গিদের মেরুদ্ল ভেঙে পড়ে—দাবি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর।

স্ব’রাষ্ট্রমন্ত্রী আ’শঙ্কা উড়িয়ে দিলেও পুলিশ সদর দপ্তর থেকে দেশের সব ইউনিটে চিঠি দিয়ে সতর্ক করা হয়েছে। পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘আমরা গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে সারা দেশের সব ইউনিটকে সতর্ক করেছি। জ’ঙ্গিদের বি’রুদ্ধে আমাদের যে অভিযানটা চলছে, সেটা অব্যাহত থাকবে।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট জঙ্গিদের ব্যাপারে নিবিড়ভাবে খোঁজ রাখে। এই ইউনিটের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের কাছে যে তথ্য-উপাত্ত রয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে শতাধিক দুর্ধ’র্ষ জ’ঙ্গি এখন কা’রাগারের বাইরে। এদের মধ্যে বেশ ক’য়েকজনের সা’জার মে’য়াদ শেষ হয়ে গেছে। এই জ’ঙ্গিরা উদ্বেগের কারণ। সম্প্রতি বেশ কয়েক জন জ’ঙ্গি আটক হয়েছে। তাদের কাছ থেকেও নতুন করে সংগঠিত হওয়ার কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। পাশাপাশি তাদের পরিকল্পনার একটা অংশও জানা গেছে।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, যারা জামিনে বা সাজা শেষ করে বের হয়েছে তাদের আমরা মনিটরিং করছি। আমরা দেখেছি, বিভিন্ন ধর্মীয় উত্সবের সময় জঙ্গিরা আগ্রাসি হয়ে উঠে। আবার আগস্ট মাসেও তাদের তত্পরতা থাকে। এ কারণে আমরা বাড়তি সতর্কতা নিয়ে রাখছি।

পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘জ’ঙ্গিদের এখন মূল টার্গেট পুলিশ। বিগত বছরগুলোতে জ’ঙ্গিদের বি’রুদ্ধে পুলিশের কঠোর অভিযানের কারণে জ’ঙ্গিরা প্রতিশোধ হিসেবে বারবার পুলিশকে টার্গেট করছে। গত বছরও ঈদের আগে ও পরে এবং আগস্ট মাসে জ’ঙ্গিদের টার্গেট হয়েছিল পুলিশ।’

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, র্যাবের সব ইউনিটকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। জ’ঙ্গি প্রতিরোধে র্যাবের অভিযান অ’ব্যাহত আছে।

গত ১৯ জুলাই পুলিশ সদর থেকে সব ইউনিটে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, সকাল ৬টা থেকে ৮টা বা সন্ধ্যা ৭টা থেকে ১০টার মধ্যে হা’মলা হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তু হিসেবে পুলিশ সদস্য, পুলিশের স্থাপনা ও যানবাহন, বিমানবন্দর, দূতাবাস, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও মি’য়ানমার বা এসব দেশের স্থাপনা ও ব্যক্তি এবং শিয়া ও আহমদিয়া ম’সজিদ, মাজা’রকেন্দ্রিক মসজিদ, মন্দির, চার্চ ও প্যাগোডাকে উল্লেখ করা হয়েছে। হা’মলা’কারীর সম্ভাব্য বয়স হবে ১৫ থেকে ৩০ বছর। হাতে তৈরি গ্রেনেড, বোমা, ক্ষুদ্রাস্ত্র কিংবা ছুরি-চা’পাতি দিয়ে হা’মলা হতে পারে। জ’ঙ্গিরা পুলিশের পোশাক পরে তাদের স্থাপনায় প্রবেশ করতে পারে।

পুলিশ সদর দপ্তর থেকে চিঠি পাঠানোর পাঁচ দিনের মাথায় গত শুক্রবার রাত ৯টায় রাজধানীর পল্টন মোড়ে পুলিশের একটি চেকপোস্টের পাশে বোমা বি’স্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পল্টন থানায় বি’স্ফোরক আইনে মা’মলাও হয়েছে। এই বোমার সঙ্গে গত বছর ঢাকায় পুলিশের ওপর হওয়া হা’মলায় ব্যবহূত বো’মার মিল রয়েছে। শনিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে গুলিস্তানে বঙ্গবন্ধু স্কয়ারের পাশ থেকে উ’দ্ধার করা হয়েছে গ্রে’নেডসদৃশ আরেকটি বস্তু। যদিও এতে বিস্ফোরক ছিল না। বোমা নি’ষ্ক্রি’য়করণকারী দল এর ভেতর শুধু বালু পেয়েছে। সূত্র : ইত্তেফাক।