হঠাৎ অসন্তোষ ২০ দলে!

দেশে করোনা পরিস্থিতিতে বিএনপির দেয়া ত্রাণ কর্যক্রমে ২০ দলের সঙ্গে সমন্বয় বা সম্পৃক্ততা না থাকায় জোটে দেখা দিয়েছে অসন্তোষ।
শরিকদের অভিযোগ, বিএনপি জোটের নেতৃত্ব দিলেও অন্যান্য দলকে কোনো মূল্যায়ন করেনা।

সর্বশেষ অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিতে জোটের তুলনায় ঐক্যফ্রন্টের প্রাধান্য ছিলো অনেক বেশি। বিএনপি ভুলেই গিয়েছিলো বিপদে ২০ দলই ছিলো তাদের পাশে।

সেই ক্ষত শুকাতে না শুকাতেই আবারো জোটকে অবমূল্যায়ন করছে বিএনপি। অসন্তোষের মুখে ২০ দলীয় জোট আজ কোণঠাসা হয়ে পড়েছে।

জোট নেতারা বলেন, আজ আমরা আশাহত। ভেবেছিলাম, জোট প্রধান খালেদা জিয়ার মুক্তির পর আশার আলো দেখবো। বিএনপির পাশাপাশি নিজেরাও উজ্জীবিত হবো। কিন্তু সেই স্বপ্ন আজ দুঃস্বপ্ন মনে হচ্ছে। কেনোনা জোট প্রধান আজ প্রায় ২ মাস হলো মুক্ত হয়েছেন। কিন্তু তিনি একবারও আমাদের খোঁজ নেননি। ফলে আমরা এখন ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন।

বিএনপি এখনো ভুল পথে পরিচালিত হচ্ছে অভিযোগ করে শরীক দলের একাধিক সিনিয়র ও দায়িত্বশীল নেতা ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, বিএনপির কাছে ২০ দলীয় জোটের কোনো মূল্য নেই। আমাদের ধরেও রাখছে না আবার ছেড়েও দিচ্ছে না।

তারা বলেন, বিএনপি যেভাবে এগোচ্ছে দেখে মনে হচ্ছে শুধুমাত্র কয়েকজন নেতা ব্যক্তিগত ফায়দা লুটছে। তারা দলীয় স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে ব্যক্তিগত স্বার্থে দল চালাচ্ছে। এছাড়া এখনই বিএনপির ভেতরে চলছে নেতৃত্বের দ্বন্দ্ব। এ দ্বন্দ্বের সমাপ্তি কী তা সময়ই বলে দেবে।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক বলেন, বিএনপির বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না। এখন করোনার সময়। কিভাবে এ পরিস্থিতি থেকে মুক্ত হওয়া যায় সেই চিন্তাই করছি।

ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বলেন, যেহেতু বিএনপি ২০ দলের নেতৃত্ব দিচ্ছে করোনা পরিস্থিতিতে দেশের এই দুর্বিষহ সময়ে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনায় আমাদের সঙ্গে নিয়ে করতে পারতো? কিন্তু তারা তা করেনি। আমাদের সঙ্গে সমন্বয় করলেও ভালো হতো। আমরা আমাদের মতো করে করেছি। তবে বিএনপির উচিত ছিল আমাদের ডাকা।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন জেলে থাকার পর মুক্তি পেয়েছেন। তিনি অসুস্থ ছিলেন। কিন্তু তিনি এখনো আমাদের ডাকেননি। আমরা তার ডাকার অপেক্ষায় আছি।

জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান বলেন, ত্রাণ কার্যক্রমে বিএনপি আমাদের ডাকেনি। আমরা যার যার অবস্থান থেকে যতটুকু সম্ভব পেরেছি সাধ্যমত চেষ্টা করেছি। তবে বিএনপির ডাকা উচিত ছিলো।

বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বলেন, এখন তো কোনো কর্মসূচি নেই, কোনো কার্যক্রম নেই। তাই বিএনপিও ডাকার প্রয়োজন বোধ করেনি। আমরা আমাদের মতো করে যতটুকু সম্ভব সাহায্য সহযোগিতা করার চেষ্টা করছি।

ডেইলি বাংলাদেশ