১৪ বছরের কিশোরীর সাথে প্রে’ম করে বিয়ে করলো ৬০ বছরের বৃদ্ধ!

স্কুলে আনা নেয়ার পথে গড়ে ওঠে প্রে’মের সম্পর্ক অবশেষে সেটি রূপ নিয়েছে বিয়েতে। গত ১০ মে তাদের কুমিল্লা শহরে বিয়ে হয়। তবে প্রশ্ন উঠেছে বরের বয়স প্রায় ৬০ আর কনের ১৪ নিয়ে।

বর পেশায় রিকশাচালক ও ছয় সন্তানের জনক এবং কনে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। তারা দূর সম্পর্কের নানা-নাতনি। অসম বিয়ের বিষয়টি এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভা’ইরাল হয়েছে।

কনের বাবার দাবি করেছেন, প্র’লোভন দেখিয়ে তার মেয়েকে কৌশলে বিয়ে করেছেন রিকশাচালক শামছুল হক শামু।তবে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের দাবি, জন্মনিবন্ধন সনদ অনুসারে কনের বয়স ২০, তাই এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ নেই।

এদিকে নববধূকে বাড়িতে না উঠিয়ে একই উপজেলায় একটি ভাড়া বাড়িতে রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১০ মে জেলার লালমাই উপজেলার পেরুল দক্ষিণ ইউপির পেরুল গ্রামের শামছুল হক শামু একই গ্রামের পশ্চিম পাড়ার

ইমাম হোসেনের মেয়ে মরিয়ম আক্তারকে পাঁচ লাখ টাকা দেনমোহর ও এক লাখ টাকা উসুল দিয়ে বিয়ে করেন। মরিয়ম আক্তার স্থানীয় পেরুল উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। স্কুলে যাওয়া আসার সময় সে শামুর রিকশায় যাতায়াত করতো।

বিয়ে প্রসঙ্গে বর শামছুল হক শামু বলেন, মরিয়ম আক্তার সম্পর্কে আমার নাতনি। দীর্ঘদিন ধরে তাদের সঙ্গে আমার পারিবারিক সম্পর্ক। তাদের বিপদে আপদে আমি সব সময় পাশে ছিলাম। তাকে স্কুলে আনা নেয়ার পথে আমাদের প্রে’মের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

নাবালিকাকে বিয়ে করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমার বউ অপা’রেশনের রোগী। সংসারে কাজ করতে পারে না তাই বিয়ে করেছি। তাছাড়া আমাদের দুইজনের সম্মতিতেই বিয়ে হয়েছে।

পাঁচ লাখ টাকা দেনমোহর ও এক লাখ টাকা উসুলে তাকে আমি বিয়ে করেছি। এক লাখ টাকা উসুলের মধ্যে আমি তাকে ১০ হাজার টাকা দিয়ে একটি কানের দুল এবং এক হাজার ৫শ’ টাকা দিয়েছি।