মার্কেট খোলার প্রথম দিনই উপচে পড়া ভিড়

মার্কেট খোলার প্রথম দিনই উপচে পড়া ভিড়

করোনার ভাইরাসের মধ্যেও ব্যবসায়ী ও ঈদের কথা ভেবে দোকানপাট-মার্কেট ও শপিংমল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তবে বসুন্ধরা সিটি ও যমুনা ফিউচার পার্কসহ রাজধানীর অনেক মার্কেটের ব্যবসায়ীরা ঈদের আগে মার্কেট ও শপিংমল না খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তবে এদিকে আজ সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী মার্কেট খুলেছে জেলা পর্যায়ের অনেক ব্যবসায়ীরা। আজ রোববার (১০ মে) সকাল ১০টার পর থেকে বগুড়ায় সবধরনের দোকান পাট ও মার্কেটগুলো খোলা হয়েছে। আর মার্কেট খোলার পর পরই দেখা দেখে উপচে পড়া ভিড়।

বগুড়া শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সেখানের ছোটখাটো অধিকাংশ মার্কেট খোলা হয়েছে। আর এসব মার্কেটে মানুষ ভিড় শুরু করেছে। তবে অভিজাত কিছু মার্কেট ও শপিং মলগুলোতে জীবাণুনাশক ও ব্যবহারের ব্যবস্থা রাখা হলেও অধিকাংশ মার্কেটগুলোতে কোন বিধি নিষেধের তোয়াক্কা করছেন না ক্রেতা বিক্রেতাগণ।

মার্কেট ও শপিং মলগুলোতে জীবাণুনাশক ও ব্যবহারের ব্যবস্থা রাখা সরকারি নির্দেশনা রয়েছে, আপনাদের এখানে তো তেমন কিছু দেখা যাচ্ছে না? এমন প্রশ্নে একটি মার্কেটের কাপড় বিক্রেতা রহিম বলেন, ভাই আমরা ছোটখাটো দোকানদার খুব বেশিকিছু রাখতে না পারলেও জীবানুনাশক একটি স্প্রে রাখা আছে।

এদিকে বগুড়া ট্রাফিক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, মার্কেট খোলার সাথে সাথে শহরে ব্যাপক চাপ পড়েছে। রিকশা ছাড়াও বিভিন্ন যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করতে ট্রাফিক পুলিশকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

অন্যদিকে মার্কেটে আসা এক ক্রেতা বলেন, ভাই মার্কেট যেদিন খুলল সেদিনই আসলাম। যাতে ভিড় এড়িয়ে চলতে পারি কিন্তু এসে দেখি মার্কেটে প্রচুর ভিড়। তারপরও প্রয়োজনী জিনিস আমার বহু আগেই কেনা দরকার ছিল কিন্তু লকডাউনের কারণে কিনতে পারনি। আজ কিনে নিতেই হবে।