ফ্লোরার পরে আলো ছড়াচ্ছেন নাসিমা সুলতানা

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন নাসিমা সুলতানা। ক’দিন আগেও তিনি ছিলেন অনালোচিত, কেউ তাঁকে তেমন একটা চিনতো না। কিন্তু এক সঙ্কটে তিনি পাদপ্রদীপে এসেছেন এবং আস্তে আস্তে আড়ষ্টতা কাটিয়ে আলো ছড়াচ্ছেন।

এখন তাঁকে অনেক দৃঢ় প্রত্যয়ী মনে হচ্ছে, মানবিক একজন ব্যক্তি হিসেবে তিনি উপস্থাপিত হচ্ছেন।নাসিমা সুলতানা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন এবং করোনা সঙ্কটের সময় যখন আইসিডিসিআর-এর

পরিচালক মিরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা আড়ালে চলে যান তখন কে এই নিয়মিত ব্রিফিং করবেন তা নিয়ে সঙ্কট দেখা দিয়েছিল। একের পর এক ব্যক্তি পরিবর্তন করা হচ্ছিল। কখনো স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক নিজে আসছিলেন, কখনো এম আই এস-এর পরিচালক হাবিবুর রহমানকে আনা হচ্ছিল। কিন্তু কেউই সেভাবে মানুষের আস্থা অর্জন করতে পারছিলেন না।

এই সময়েই আনা হয় নাসিমা সুলতানাকে এবং প্রথম দিকে তিনি ছিলেন আড়ষ্ট, তাঁকে আনা নিয়েও প্রশ্ন উঠছিল। কিন্তু আস্তে আস্তে তিনি নিজ যোগ্যতা আর গূণে নাসিমা সুলতানা এখন অনেক প্রত্যয়ী হয়েছেন। তাঁর বক্তব্য এখন পরিমার্জিত, শালীন এবং অল্প কথায় তিনি সবকিছুই বলছেন।

তথ্য-উপাত্ত পরিবেশন ছাড়াও তিনি যে নির্দেশনাগুলো দিচ্ছেন, সেই নির্দেশনাগুলোর মধ্যে রয়েছে আন্তরিকতার ছোঁয়া। একজন অভিভাবকের মতো করে, একজন নিবেদিত প্রাণ স্বাস্থ্য কর্মীর মতো করে তিনি মানুষকে উপদেশ দিচ্ছেন। আর তাঁর উপস্থিতির কারণে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এই অনলাইন ব্রিফিং নিয়ে যে বিতর্ক ছিল, সেই বিতর্কগুলোর আপাত অবসান হয়েছে।