পর’কীয়ায় বাধা দেওয়ায় স্বামীর লি’ঙ্গ কে’টে পালিয়ে গেলেন স্ত্রী!

পর’কীয়ায় বাধা দেওয়ায় স্বামীর লি’ঙ্গ কে’টে পালিয়ে গেলেন স্ত্রী!

পর’কীয়ায় বাধা দেওয়ায় স্বা’মীকে অ’জ্ঞান করে লি’ঙ্গ কেটে দেয়ার অ’ভিযোগ উঠেছে এক স্ত্রীর বিরুদ্ধে। শনিবার (৯ মে) রাতে নওগাঁ’র ধামইরহাট উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের দেউলবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। আহত ব্যক্তির নাম হারুনুর রশিদ। তিনি বর্তমানে মু’মূ’র্ষু অবস্থায় ধামইরহাট স্বা’স্থ্য কম’প্লে’ক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আহত ব্যক্তি গণমাধ্যমকে জানান, তার স্ত্রী ফরিদা বেগম (৩৮) এক ব্য’ক্তির সঙ্গে মোবাইলে কথা বলতেন। বিষয়টি জানতে পেরে স্ত্রী’কে নিষেধ করার পরেও পুনরায় ওই ব্যক্তির সঙ্গে মোবাইলে কথা বলার কারণে স্ত্রী’র ফোনটি কে’ড়ে নেন তিনি।

সেই ঘটনার পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর দ্ব’ন্দ্ব শুরু হয়। এমন অবস্থায় শনিবার দিবাগত রাতে স্ত্রী ফরিদা বেগম তাকে একাধিকবার রাতের খাবার (পোলাও) খেতে অনুরোধ করেন এবং এক পর্যায়ে বাধ্য করে পোলাও খাইয়ে দেন।

এতে তিনি অ’জ্ঞান হয়ে গেলে ধা’রালো হাসুয়া দিয়ে তার লি’ঙ্গ কেটে স্ত্রী পালিয়ে যান। পরে রাতে তাকে ধামইরহাট হাসপাতালে নিয়ে এলে আংশিক কেটে যাওয়া লি’ঙ্গে একাধিক সেলাই দেন কর্ত’ব্যরত চিকিৎসক। এরপর তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এ ঘটনায় আহতের ভাই হাফেজ উদ্দিন বাদী হয়ে ধামইরহাট থা’নায় অ’ভিযোগ করেছেন বলেও জানান আহত হারুনুর রশিদ। ধামইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম হাসান সরদার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘স্বামী-স্ত্রী অভ্য’ন্তরীণ দ্ব’ন্দ্বে’র কারণে এই ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।’