নারীরা পাঁচ উপায়ে সহজেই পুরুষদের ফাঁ’দে ফেলতে পারে!

নারীরা পাঁচ উপায়ে সহজেই পুরুষদের ফাঁ’দে ফেলতে পারে!

প্রেমময় জীবন সুন্দর ও সুখের হয়। তবে প্রেম সবার জীবনকেই সুন্দর করে তা কিন্তু নয়। সঠিক সঙ্গী যদি নির্বাচন না করা যায়, তবে জীবনে দুঃখ নেমে আসে। তাইতো নারীদের প্রায়শই “ছলনাময়ী” বলেন পুরুষরা।

যদিও এ নিয়ে আপত্তির শেষ নেই নারীদের। তবে সত্যিই নারীদের বিশেষ কিছু কাজ সহজেই পুরুষদের প্ররোচিত করে। অনেক পুরুষই নারীদের এসব বিষয়ে খুব আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ে। আর তখনই ঘটে বিপদ। তাই জেনে নিন, নারীদের পাঁচটি ছলনা সম্পর্কে যেগুলো সহজেই পুরুষদেরকে ফাঁ’দে ফেলতে পারে-

সৌন্দর্যের জাদু

নারীর রূপ সহজেই একজন পুরুষের মন ভুলিয়ে দেয়। সুন্দরী নারীর রূপে মোহিত হন না, এমন পুরুষের সংখ্যা অনেক কম। একজন সুন্দরী নারীর আবেদন অগ্রাহ্য করার মত মানসিক শক্তি খুব কম পুরুষেরই আছে। তাই সুন্দরী নারীরা খুব সহজেই পুরুষদেরকে ফাঁ’দে ফেলতে পারে। মোট কথা, পুরুষ নিজে গিয়ে ধরা দেয় তাদের সৌন্দর্যের ফাঁ’দে।

সুস্বাদু রান্না

অনেকেই বলেন, পুরুষের মনের রাস্তা নাকি তার পেট হয়ে যায়। আর পুরুষের মন জেতার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো সুস্বাদু রান্না করে খাওয়ানো। একজন নারী যদি নিজের হাতে রান্না করা জিভে পানি আনা খাবার খাইয়ে একজন পুরুষকে পটাতে চায়, তাহলে সেটা ফেরানোর সাধ্য খুব কম পুরুষেরই আছে।

যৌ’নতার ফাঁদ

নারীদের জন্য কোনো পুরুষকে ফাঁ’দে ফেলার সবচেয়ে জঘন্য উপায় হলো যৌ’নতার লোভ দেখানো। ইঙ্গিতময় কথাবার্তা, একটু হাসি-ঠাট্টা, সিডাকশন বুঝিয়ে দেয়া যে আমি চাইলেই তোমার হতে পারি। আর এই ফাঁ’দে লোভী পুরুষরা সবার আগে ফেঁসে যান।

চোখের জল

নারীদের সব থেকে শক্তিশালী অ’স্ত্র হচ্ছে চোখের জল। যা দিয়ে খুব সহজেই একজন পুরুষকে কাবু করা সম্ভব। চোখের দুই ফোঁটা জলেই একজন পুরুষ গলে যায়। এভাবে তেমন কোনো কষ্ট ছাড়াই যে কোনো কাজে পটিয়ে ফেলা যায় একজন পুরুষকে। কারণ অধিকাংশ পুরুষই নারীর চোখের জলকে অবহেলা করতে পারেন না।

ইমোশনাল অ’ত্যাচার

‘ইমোশনাল অ’ত্যাচার’ করে একজন নারী খুব সহজেই একজন পুরুষকে পটিয়ে ফেলতে পারে। একবার ইমোশোনাল অ’ত্যাচারের শিকার হলে ভালোমন্দ বিচার করার ক্ষমতা অনেক পুরুষই হারিয়ে ফেলে। বরং সবকিছুর জন্য নিজেকেই দোষী মনে করে। আর সেই দোষ থেকে মুক্তি পেতে অনেক কিছুই করতে প্ররোচিত হন।