এলো যত ত্রাণ: অর্ধেক পেল জেলেরা, অর্ধেক চেয়ারম্যান

এলো যত ত্রাণ: অর্ধেক পেল জেলেরা, অর্ধেক চেয়ারম্যান

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘা ইউপি চেয়ারম্যান আকন মো. সহিদের বিরুদ্ধে নতুন কৌশলে জেলেদের চাল আ’ত্মসাতের অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। ভিজিএফ’র তালিকায় একজন জেলের নাম দুইবার লিখে অর্ধেক চাল বিতরণ করে বাকিটা আ’ত্মসাৎ করেছেন তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইলিশ শিকার বন্ধ থাকায় ওই ইউপির জেলেদের মাঝে বিতরণের জন্য ভিজিএফ’র আওতায় ২৫ মার্চ কালমেঘা ৬৯৫ জেলের জন্য মাসিক ৪০ কেজি করে চাল দিয়েছে সরকার।

চাল বিতরণের তালিকা ও মাস্টাররোল ঘেঁটে দেখা গেছে, ওই ইউপির ৬৯৫ জন জেলের মধ্যে ১৩ জনের নাম দুইবার করে লেখা। ওই ১৩টি নামের বিপরীতে দুই হাজার ৮০ কেজি চালের হিসাব দেখানো হয়েছে। অথচ চাল বিতরণ করা হয়েছে এক হাজার ৪০ কেজি। বাকি চাল আ’ত্মসাৎ করেছেন চেয়ারম্যান।

ভুক্তভোগী জেলেরা বলেন, আমরা একবারই ৭০ কেজি করে চাল পেয়েছি। ১৬০ কেজি চাল আমাদের নামে তালিকায় আছে কিনা জানি না।

অ’ভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান আকন মো. সহিদ বলেন, মাস্টাররোলে একটু ভুল আছে। চাল বিতরণে কিছুটা অনিয়ম হলেও দুর্নীতি হয়নি। বাকি চাল রাখা হয়েছে, এগুলো জেলেদের দেয়া হবে।

তদারকি কর্মকর্তা রবীন্দ্রনাথ হাওলাদার বলেন, আমার উপস্থিততে চেয়ারম্যান সবার মাঝে চাল বিতরণ করেছেন। একই ব্যক্তির নামে দুইবার চাল দেয়ার সুযোগ নেই। চেয়ারম্যান এমনটা করে থাকলে ভুল করেছেন।

পাথরঘাটার মৎস্য কর্মকর্তা জয়ন্ত কুমার অপু বলেন, জেলেদের নাম তালিকায় দুইবার দিয়ে চাল আ’ত্মসাতের বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।