ভয়াবহ কনডম সংকটে বাংলাদেশসহ বিশ্ব ; কিন্তু হঠাৎ কেন? জানা গেল নতুন তথ্য!

প্রা’ণঘা’তী করোনাভাইরাস ২০০টিরও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। রূপ নিয়েছে বিশ্ব ম’হামারির। এ মহামারি মোকাবিলা করতে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এরই ধারাবাহিকতায় সং’ক্রমিত হওয়া দেশগুলো লকডাউন, শাটডাউনের পথে হাঁটছে। আর এতে বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ জন্ম নিরোধক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ক্যারেক্স। তাই বিশ্ব এখন জন্ম নি’রোধক সং’কটে পড়েছে।

ক্যারেক্স মালশিয়ার কোম্পানি। বিশ্বের প্রতি পাঁচটি জন্ম নিরোধকের একটি উৎপাদন করে এ প্রতিষ্ঠানটি। খবর- রয়টার্স।করোনাভাইরাস মো’কাবিলায় আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা দিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার। এ কারণে গত ১০ দিন ধরে সেখানে প্রতিষ্ঠানটির তিনটি কারখানায় উৎপাদন কাজ বন্ধ।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবারের প্রতিবেদনে বলছে, এরইমধ্যে ১০০ মিলিয়ন জন্ম নিরোধক কনডমের ঘাটতিতে পড়ছে গোটা বিশ্ব। ক্যারেক্সের উৎপাদিত জন্ম নিরোধক আন্তর্জাতিকভাবে বাজারজাত করে ডিউরেক্স। যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা (এনএইচএস) এবং জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলসহ আরো অনেককে এই কোম্পানি জন্ম নিরোধক সরবরাহ করে।

ক্যারেস্কের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) গোহ মিয়া কিয়াত গত সপ্তাহে রয়টার্সকে বলেন, আমরা গোটা বিশ্বের সর্বত্র জন্ম নিরোধকের ঘাটতি দেখতে পাচ্ছি, যা ভী’তিকর একটি বিষয়। আমার উ’দ্বেগ আফ্রিকার অসংখ্য মানবিক প্রকল্প বিপদের মুখে পড়বে। শুধু এক দুই সপ্তাহ কিংবা মাস নয় কয়েক মাস এ সংকট থাকবে।

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি জন্ম নিরোধক উৎপাদনকারী দেশ হলো চীন। কিন্ত সেখান থেকেই করোনার প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ায় অনেক কারখানা এখনো বন্ধ। চীন আর মালয়েশিয়া ছাড়াও ভারত এবং থাইল্যান্ড বিশ্বের শীর্ষ জন্ম নিরোধক উৎপাদনকারী দেশ। কিন্তু ভারতে এখন ২১ দিনের লকডাউন চলছে। থাইল্যান্ডেও করোনা সং’ক্রমণের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

ক্যারেস্কের সিইও জানান, তাদের কোম্পানির উৎপাদন অব্যাহত ও কারখানা খুলে দেয়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানানোর চেষ্টা করছেন তারা। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের লাইভ তথ্য মতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনায় মারা গেছেন ২৫ হাজার ৪৪ জন। আর আ’ক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৫২ হাজার ৬৩২ জন।