এবার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বাসা থেকে ২ টন চাল উ’দ্ধার!

ত্রাণের (জিআর) জন্য বরাদ্দের ২ টন চাল মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বাসা থেকে উদ্ধাএরর ঘটনা ঘটেছে চাঁদপুর সদর উপজে’লায়। সদর উপজে’লার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানার শহরের বাসা থেকে আজ দুপুর আড়াইটার দিকে এ চাল উ’দ্ধার করা হয়। বুধবার (১৫ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটার দিকে সদর উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কানিজ ফাতেমার তত্ত্বাবধানে পিকআপভ্যান দিয়ে চালগুলো উ’দ্ধার করে উপজে’লার গোডাউনে নিয়ে রাখা হয়। এর আগে মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে চালগুলো চাঁদপুর সিএসডি গোডাউন থেকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শহরের ট্রাকরোড এলাকার পালপাড়াস্থ তার নিজ বাসায় এনে রাখেন।

স’রকারি ত্রাণের চাল মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিজ বাসায় এনে রাখার বি’ষয়টি বিভিন্ন সূত্রে জে’লা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, স’রকারি গো’য়েন্দা সংস্থা জানতে পারে। এরপর ওই চালগুলো তার বাসা থেকে নিয়ে আসার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। খবর পেয়ে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা এসে চালগুলো ট্রাকে উঠিয়ে উপজে’লায় নেয়ার প্রস্তুতি অবস্থায় পান।

খবরে পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক সানজিদ ঘটনাস্থলে আসেন এবং ওই বাসায় ত্রাণের চালের মজুতের বি’ষয়ে খোঁজখবর নেন। চাঁদপুর সদর উপজে’লার একজন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জানান, স’রকারি ত্রাণ কিংবা কোনো বরাদ্দের চাল নিজ বাড়িতে নিয়ে রাখার নিয়ম নেই। আমাদের যত বরাদ্দ আসে সেগুলো গোডাউন থেকে সরাসরি পরিষদের গোডাউনে নিয়ে রাখি। অনেক সময় সরাসরি বিতরণকৃত এলাকায় নিয়ে তালিকাভুক্ত লোকাদের হাতে তুলে দেই।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা বলেন, জিআর বরাদ্দের চাল ইউনিয়নের গরিবদের মাঝে বিতরণের কথা। ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় যেহেতু চেয়ারম্যানরা বিতরণ করেন, আমি চিন্তা করেছি ইউনিয়নে না দিয়ে আমার বাসার আশপাশের লোকদের দেব। সেই সুবিধার্থে বাসায় এনে রেখেছি। চাঁদপুরের অতিরিক্ত জে’লা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, সংবাদ পেয়ে আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বলেছি তার তত্ত্বাবধানে চালগুলো ওই বাসা থেকে উ’দ্ধার করে উপজে’লার গোডাউনে রাখার জন্য। তিনি গোডাউনে আনার ব্যবস্থা করেছেন। যদি গরিবদের দিতে হয় উপজে’লা থেকেই দিতে হবে। অসৎ উদ্দেশ্যে বাসায় নিয়ে ত্রাণের চাল রেখেছেন ওই চেয়ারম্যান।