২১ বছরের রেকর্ড ভেঙে দিলেন তামিম-লিটন!

২১ বছরের রেকর্ড – একেই বুঝি বলে দুর্ভাগ্য! প্রথম দুই ম্যাচ হেরে এরই মধ্যে সিরিজ হাতছাড়া হয়েছে। আজ শেষে ম্যাচে টসে জিতে কী বুঝে যে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠাল জিম্বাবুয়ে। নিজের সিদ্ধান্তেই হয়তো এখন চুল ছিড়তে ইচ্ছে করছে অধিনায়ক শন উইলিয়ামসের। ওপেনিং জুটিতেই যে স্কোরবোর্ডে ১৭৪ রান জমা করে ফেলেছে বাংলাদেশ।

সেই সঙ্গে দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস ভেঙে দিয়েছেন শাহরিয়ার হোসেন ও মেহরাব হোসেন অপির গড়া ২১ বছর আগের রেকর্ড।১৯৯৯ সালের ২৫ মার্চ ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে ওপেনিং জুটিতে ১৭০ রান করেছিল শাহরিয়ার-মেহরাব জুটি। এবার ২১ বছর পর সেই রেকর্ড নিজেদের নামের পাশে লিখিয়ে নিলেন তামিম-লিটন। ভেন্যু ভিন্ন হলেও একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডে ওপেনিং জুটিতে এই রেকর্ড গড়েন তারা।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে ৩৩ ওভারে বিনা উইকেটে ১৮০ রান করেছে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ে আছেন লিটন (১০১) ও তামিম (৭৮)।

ওপেনিং জুটিতে তামিম-লিটনের রানের রেকর্ড

দুর্দান্ত খেলছেন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। দুজনই ব্যাটে রানের ফোয়ারা ছোটাচ্ছেন। তাতে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। হু হু করে বাড়ছে দলীয় রান। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৩৩ ওভার শেষে বিনা উইকেটে ১৮০ রান করেছে বাংলাদেশ।

এ পথে ওপেনিং জুটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছেন তামিম-লিটন। তারা ছাড়িয়ে গেলেন শাহরিয়ার হোসেন ও মেহরাব হোসেনের ১৭০ রানের পার্টনারশিপকে। এতদিন উদ্বোধনী জুটিতে সেটিই ছিল সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। ইতিমধ্যে ক্যারিয়ারে তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন লিটন। তিনি ১০২ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। সেঞ্চুরির দোরগোড়ায় আছেন তামিম। তিনি ৭৯ রান নিয়ে ক্রিজে আছেন।

শুক্রবার সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে। টাইগারদের অধিনায়ক হিসেবে এটি মাশরাফি বিন মুর্তজার শেষ ম্যাচ। সেই গেমে টসভাগ্যে হেরে যান তিনি। তাতে জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন জিম্বাবুয়ে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক শন উইলিয়ামস। শিশিরের কথা ভেবে এ সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

আগের দুই ম্যাচে টস জেতে বাংলাদেশ। দুবারই প্রথমে ব্যাট করে জয় তুলে নেয় তারা। এবার হেরেও ব্যাট পান স্বাগতিকরা। ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নেমে দলকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। শুরু থেকেই স্বচ্ছন্দে খেলেন তামিম। তবে সাবধানী শুরু করেন লিটন। অবশ্য সময় গড়ানোর সঙ্গে খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসেন তিনি। পরে খেলেন হাত খুলে। পথিমধ্যে ফিফটি তুলে নেন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান। ছন্দময় ব্যাটিং করেন তামিম।ব্যাটে ছোটান স্ট্রোকের ফুলঝুরি। খানিক পর ফিফটি তুলে নেন তিনিও।

সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে বাংলাদেশ। এ ম্যাচে জিতলে দেশের প্রথম অধিনায়ক হিসেবে ৫০ ওয়ানডে জয়ের কীর্তি গড়বেন মাশরাফি। অধিনায়কের বিদায়ী ম্যাচে একাদশে আসে ৪ পরিবর্তন। বাদ পড়েন নাজমুল হোসেন শান্ত ও মুশফিকুর রহিম। স্থলাভিষিক্ত হন নাঈম শেখ ও আফিফ হোসেন। এ নিয়ে দুজনের অভিষেক ঘটে।

এছাড়া একাদশে ফেরেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। বাজে ফর্মের কারণে বাদ পড়েন শফিউল ইসলাম ও আল-আমিন হোসেন। তবে অপরিবর্তিত থাকে জিম্বাবুয়ে একাদশ। টসের সময় মাশরাফিকে অভিনন্দন জানান উইলিয়ামস।