মোদির প্রস্তাবে আফগান প্রেসিডেন্টের ‘না’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দেওয়া প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। করোনাভাইরাস মোকাবেলার কৌশল নির্ধারণে সার্কভুক্ত দেশগুলোর নেতাদের ভিডিও কনফারেন্সে তিনি মোদির প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন।

বৈঠকে নরেন্দ্র মোদি করোনা মোকাবেলায় একটি ফান্ড গঠনের প্রস্তাব দেন। ভারতের পক্ষ থেকে এই ফান্ডে ১ কোটি মার্কিন ডলার দেওয়ার কথাও বলেন তিনি। পাশিপাশি অন্য দেশগুলো তিনি সাধ্যমতো এই ফান্ডে অর্থ দেওয়ার আহ্বান জানান। কিন্তু আফগান প্রেসিডেন্ট শুরুতেই এই ফান্ডে অর্থ বরাদ্দ করতে নিজেদের অপারগতার কথা জানান। তিনি বলেন যে, আফগানিস্তান বর্তমানে অর্থনৈতিকভাবে খুবই দুর্বল অবস্থায় আছে। এ কারণে কোনো ফান্ডে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া তাদের পখে সম্ভব নয়।

উল্লেখ্য যে, দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা (সার্ক) সদস্য দেশগুলোর নেতারা ‘করোনাভাইরাস মোকাবিলায় একটি দৃঢ় কৌশল প্রণয়নের’ লক্ষ্যে আজ রোববার ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দিয়েছেন।

বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সূচনা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে ভিডিও কনফারেন্স শুরু হয়। মোদির পর বক্তব্য দেন আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহ, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সার্ক নেতারা।

সূচনা বক্তব্যে নরেন্দ্র মোদি বলেন, আমাদের দেশগুলো একে অপরের সঙ্গে যুক্ত। তাই এ দুর্যোগ মোকাবিলায় আমাদের সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়টি যেমন অবমূল্যায়ন করা যাবে না, তেমনই অযথা আতঙ্কিতও হওয়া যাবে না।

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ভারতে গৃহীত পদক্ষেপ বিষয়ে নরেন্দ্র মোদি বলেন, আমাদের দেশে ভ্রমণে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে, হাসপাতালে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, প্রতিটি প্রদেশকে আলাদাভাবে প্রস্তুত হতে বলা হয়েছে। এ ভিডিও কনফারেন্সের উদ্দেশ্য এ মহামারি মোকাবিলায় আমাদের অবস্থান ও দৃষ্টিভঙ্গি একে অপরকে জানানো।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, সার্কের সদস্য দেশগুলোকে সজাগ থাকা দরকার। যদিও আমরা এখন পর্যন্ত ১৫০ জন করোনা আক্রান্ত পেয়েছি। আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে, আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। করোনাভাইরাসের লড়াইয়ে আমাদের অবকাঠামোগত স্থাপনার কাজ বাড়ানো হয়েছে।

ভারতের এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণে দেশের প্রত্যেকটি স্তরে বিশেষ প্রোটোকল তৈরি করেছি। করোনাভাইরাস বিপর্যস্ত অঞ্চল থেকে প্রতিবেশী দেশগুলোর কিছু নাগরিককে সড়িয়ে আনতে সহায়তা করেছে ভারত।

ভিডিও কনফারেন্সে আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি বলেন, ভারত সাংহাই কো-অপারেশনের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য, চীনও এর সদস্য। আমি চীনের অভিজ্ঞতা নেয়ার জন্য তাদের সঙ্গে আমাদের সমন্বয় বাড়ানোর প্রস্তাব করছি। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সার্কভুক্ত দেশগুলোর মাঝে একটি সাধারণ টেলি-মেডিসিন কাঠামো গঠনের প্রস্তাব করছি।

নরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ জানিয়ে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, চীনের উহান থেকে আমাদের ২৩জন শিক্ষার্থী ফিরেছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এখন পর্যন্ত আমাদের দেশে পাঁচজন করোনা সংক্রমিত ব্যক্তি এসেছেন। স্থানীয়ভাবে কোনও সংক্রণের ঘটনা পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, করোনা মোকাবেলায় কৌশলগত বিষয় নিয়ে আমাদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্যসচিবরাও এ ধরনের সম্মেলনে আলোচনা করতে পারেন। তিনি বলেন, আমি আশা করছি, এই সম্মেলন করোনা মোকাবেলায় আমাদের সবাইকে নতুন পথের দিশা দেবে।

কনফারেন্সের শুরুতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি করোনা মোকাবেলায় বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের পরামর্শ দেন। এ সময় তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মোকাবেলায় আমাদের সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। এটিকে খাটো করে দেখার কোনও সুযোগ নেই।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় একটি কৌশল প্রণয়নের লক্ষ্যে সার্ক নেতারা এই কনফারেন্সে যোগ দেন। গত শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী যে প্রস্তাব দেন, বাংলাদেশসহ সব সার্ক সদস্য দেশ তাতে সাড়া দেয়। সবশেষ গতকাল শনিবার সাড়া দেয় পাকিস্তান।

শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এক টুইট বার্তায় করোনাভাইরাস মোকাবিলায় দৃঢ় কৌশল অবলম্বনের জন্য সার্ক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘আমি প্রস্তাব করতে চাই যে, সার্ক দেশগুলোর নেতারা করোনাভাইরাস মোকাবিলায় দৃঢ় কৌশল অবলম্বন করবেন। আমরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আমাদের নাগরিকদের সুস্থ রাখার উপায় নিয়ে আলোচনা করতে পারি।’