বাবার ক’ন্ডোম চুরি করে যৌ’নতায় মত্ত মেয়ে, দেখতে পেয়ে যা করলেন বাবা।

ঘটনাটি ঘটেছিল ২০১৫ সালে, কিন্তু ইদানিং সেই খবরেই তোলপাড় হচ্ছে জার্মানি৷ ঘটনাটি সত্যই অবাক করা৷ আসাদুল্লা খান, ৫১ বছর বয়স তাঁর৷ স্ত্রী সাজিয়া ও কন্যার সঙ্গে পাকিস্তানের এই বাসিন্দা থাকতেন জার্মানিতে৷
১৯ বছরের মেয়ে লারিবের সঙ্গে কোনও সমস্যাই ছিল না৷

কিন্তু বাবা আসাদুল্লা একদিন হঠাৎ দেখলেন মেয়ে বাবাকে লুকিয়ে ক’ন্ডোম চুরি করছে৷ আর তাতেই মাথা গরম হয়ে গেল বাবার৷ মেয়েকে ঘরে দরজা বন্ধ করে গলা ফাঁস দিয়ে খু’ন করলেন বাবা৷ মা হাজার চেষ্টা করেও মেয়েকে বাঁচাতে পারেননি৷

আদালতের সামনে মৃ’ত মহিলার মা জানিয়েছেন, তাঁদের সন্দেহ এমন ঘটনা আগেও ঘটেছে৷ মেয়ে এভাবে পরিবারের অমতে একটি ছেলের সঙ্গে প্রেম করছে, সেটা মেনে নিতে পারেননি বাবা৷ কারণ, ঘটনার পরে তাঁর মনে হয়েছে, মেয়ে এভাবেই ক’ন্ডোম চুরি করে হয়ত আগেও ছেলেটির সঙ্গে যৌ’নতায় অংশ নিয়েছিল৷

মেয়েকে একাধিকবার মা বাবা দুজনেই হিজাব পড়তে বলেছিলেন, কিন্তু সে পড়েননি৷ কোনও কথাই মেয়ে শুনতো না বলেও অভিযোগ তাঁদের৷লারিবের একটি বোনও আছে৷ সে সেদিন বাড়িতে ছিল৷ তাই কীভাবে ঘটনা ঘটেছে, তেমন কোনও নিরপেক্ষ মতামতও পাওয়া যায়নি৷ তবে ঘটনার না’রকীয়তায় অনেকেই স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছেন৷