ধামরাইয়ে ছাত্রলীগ নেতার বাড়ি থেকে ৫ জ’ঙ্গি গ্রেফতার

ঢাকার ধামরাইয়ে নিষিদ্ধ সংগঠন আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের (এটিবি) নারীসহ ৫ সদস্য আটক হয়েছে।উপজেলার কুশুরা নবযুগ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. আমিনুর রহমানের বাড়ি থেকে ৪ জন ও সদর ইউনিয়নের আশুলিয়া এলাকা থেকে ১ জনকে আটক করে র‌্যাব সদস্যরা।

গোপন খবরের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪-এর সিইও মো. মোজাম্মেল হক ও ডিএডি মো. সাদেকুল ইসলামের (এএসপি) নেতৃত্বে শনিবার রাতে র্যাওব সদস্যরা অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে।ওই ছাত্রলীগ নেতা আমিনুর রহমানের শেল্টারেই নিষিদ্ধ সংগঠন আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যরা সংগঠনের কর্মকাণ্ড পরিচালনার সুযোগ লাভ করে বলে স্থানীয় লোকজন জানান।

আটককৃত আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যরা হল গোপালগঞ্জ জেলার মো. মোয়াজ্জিম মিয়া শিহাদ (২০), ঝালকাঠি জেলার মো. অলিউল ইসলাম সম্রাট (২৩), দিনাজপুর জেলার মো. সবুজ হোসেন মোহাম্মদ আবদুল্লাহ (২৬), চাঁদপুর জেলার মো. আরিফুল হক আরিফ (২০) ও ঢাকা জেলার কুল্লা ইউনিয়নের ফোর্ডনগর কবরস্থান এলাকার মো. আজমত আলীর মেয়ে মোসাম্মৎ রাশিদা আক্তার হুমায়রা। রশিদা কাতারে থাকার সময় আনসারউল্লাহ বাংলাটিম নেটওয়ার্কের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে।

এলাকাবাসী ও র‌্যাব সূত্র জানায়, নিষিদ্ধ সংগঠন আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের ওই ৫ সদস্য ধামরাইয়ের সদর ইউনিয়নের আশুলিয়া ও মো. আমিনুর রহমানের পানকান্তা এলাকাস্থ বাড়ি ভাড়া নেয়। আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যদের সুসংগঠিত করে দেশের বিভিন্ন স্থানে মিশন চালানোর জন্য আস্তানা হিসাবে গড়ে তোলা হয় এ দুটি স্থানকে।

এ দুটি স্থানে নিষিদ্ধ সংগঠনটির বিভিন্ন পর্যায়ের সদস্যদের উন্নত প্রশিক্ষণ দিতে থাকলে বিষয়টি সচেতন নাগরিকদের দৃষ্টিগোচর হয়। গোপনে বিষয়টি র‌্যাব-১-এর সদস্যদের জানানো হলে তারা শনিবার বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়।

র‌্যাব-৪-এর প্রেস ব্রিফিংয়ে বলা হয়, নিষিদ্ধ সংগঠন আনসারউল্লাহ বাংলা টিমের এ সদস্যরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে নিজেদের সংগঠিত হওয়ার জন্য। তারই অংশহিসাবে এ ৫ সদস্য ধামরাইয়ের আশুলিয়া এলাকার নির্জন এলাকায় তাদের ঘাঁটি গাঁড়ে। সময় মতো তাদের আটক করা না হলে এরা অধিক শক্তিশালী হয়ে উঠত এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে হামলা চালাত।

র‌্যাব-৪ সূত্র জানায়, রশিদা হুমায়রা মধ্যপ্রাচ্যের কাতারে বসবাস করায় এ জঙ্গি নেটওয়ার্কের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। কিছুদিন আগে দেশে এসে কুশুরা এলাকায় ওই জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে যোগ দেয় এবং বিভিন্ন মিশন নিয়ে পরিকল্পনা করে। তাদের মিশন চালানোর আগেই বিষয়টি টের পেয়ে এলাকাবাসী র্যাকবকে অবহিত করলে র্যাইব অভিযান চালায়।

কুশুরা নবযুগ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রলীগ নেতা মো. আমিনুর রহমান জানান, জঙ্গিদের আমার বাড়ি থেকে আটক করা হয়নি। তাদের কোথায় আটক করা হয়েছে তাও বলতে পারব না। রশিদা হুমায়রার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নিয়ে তার মা আনোয়ারা বেগম আমাদের বাড়িতে অবস্থান করছিল। র্যারব মোবাইল ফোন ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে আমাদের বাড়িতে এসে তা জব্দ করে। আমি এ জঙ্গি নেটওয়ার্কের সঙ্গে কোনোভাবেই জড়িত নই।