মোদী বাংলাদেশে পা রাখলে আরেকটি শাপলা চত্বর হবে !

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলার মাটিতে পা রাখলে আরেকটি শাপলা চত্বরের হু’মকি দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা ঈদগাহ মাঠে আন্তর্জাতিক তাহাফফুজে খতমে নবুওয়াত সংগঠনের উদ্যোগে আহমদীয়া (কাদিয়ানী) বিরোধী মহাসমাবেশে ভারতে মুসলিম নি’র্যাতন এবং মসজিদে হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সংগঠনের নেতারা এই ঘোষণা দেন।

সমাবেশে ৭ দফা দাবি সংবলিত ঘোষণাপত্রেও ভারতের মুসলমানদের উপর অ’ত্যাচার, হ’ত্যা বন্ধের দাবি করা হয়।এছাড়া কাদিয়ানিদের সরকারিভাবে অমুসলিম ঘোষণা, তাদের সকল প্রকার প্রচার-প্রকাশনা নি’ষিদ্ধ, তাদের নামাজ, রোজা, হজ, যাকাত নি’ষিদ্ধ, পণ্য নি’ষিদ্ধ, সরকারের উচ্চ পর্যায়ে থাকা কর্মকর্তাদের বরখাস্ত, হযরত মুহাম্মদ (সঃ) এর ক’টূক্তিকারীদের বিচার দাবি করে আইন পাস করার দাবি তুলে ধরা হয়।

এটি পাঠ করেন জেলার শীর্ষস্থানীয় আলেম মাওলানা সাজিদুর রহমান। এই মহাসমাবেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাড়াও কুমিল্লা, হবিগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বাসে-ট্রাকে, নৌকায় করে হাজার হাজার মাদ্রাসা ছাত্র-শিক্ষক ও সাধারণ মানুষ যোগ দেন।

সমাবেশে ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি শাখাওয়াত হোসেন রাজি বলেন- ভারতের মুসলমানদের অবস্থা এখন খুবই নাজুক। মুসলমানদের উপর ভয়াবহ অ’ত্যাচার নি’র্যাতন চলছে। ভারতের বিভিন্ন এলাকার মসজিদের মিনারে উঠে মাইক ভেঙে ফেলা হচ্ছে, হনুমানের ছবি বসিয়ে দেয়া হচ্ছে।

চোখে এ’সিড দিয়ে মুসলমানদের পু’ড়িয়ে মা’রা হচ্ছে। এটা ন্য’ক্কারজনক ঘটনা। তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে জ’ঙ্গি স’ন্ত্রাসী হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন- নরেন্দ্র মোদি বাংলার মাটিতে পা রাখলে আবার একটি শাপলা চত্বরের ঘটনা ঘটবে। নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখতে দেয়া হবে না হুঁ’শিয়ারি দিয়ে রাজি আরো বলেন- তিনি ইসলাম ও মানবতার দু’শমন, বাংলাদেশের দু’শমন।