উত্তপ্ত রাজনীতি :বন্ধুহীন আওয়ামী লীগ জোট চাঙ্গায় মনোযোগ!

হঠাৎ দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। বিএনপি আজ এবং আগামীকাল প্রতিবাদ দিবস পালন করছে। বিএনপির একাধিক নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে বাসে আগুন লাগানোর ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তারা বিনা চ্যালেঞ্জে সবকিছু ছেড়ে দেবে না।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগ বলছে , বৃহস্পতিবার বাসে আগুনের ঘটনা সুস্পষ্টভাবে বিএনপি-জামাতের কাজ। তারা গণতান্ত্রিক উপায়ে সরকারকে পরাজিত করতে না পেরে আবার পুরনো খেলায় মেতেছে। তারা সহিংসতা এবং অগ্নি-সন্ত্রাসের রাজনীতি শুরু করেছে। এই অগ্নি সন্ত্রাসের রাজনীতি সফল হবে না।

রাজনীতির উত্তাপের মধ্যে আওয়ামী লীগ তার পক্ষের জোটদেরকে ঐক্যবদ্ধ করার ব্যাপারে মনোযোগী হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় সাম্প্রতিক দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হয় বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা সরকারের বিরুদ্ধে নতুন করে ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাও এ মন্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেন। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করা এবং আওয়ামী লীগের সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করার ব্যাপারেও তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

উল্লেখ্য যে, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের পর থেকে আওয়ামী লীগ একলাচলো নীতি অনুসরণ করে আসছে। এর আগে যে দুবার ক্ষমতায় এসেছিল, দুবারই আওয়ামী লীগের মন্ত্রিসভায় মহাজোট এবং ১৪ দলীয় জোট থেকে কয়েকজনেকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।

কিন্তু এবার গত ৭ জানুয়ারিতে যে মন্ত্রিসভা গঠন করে সেটি শুধু আওয়ামী লীগের মন্ত্রী সভা ছিল। মহাজোট বা ১৪ দলীয় জোট থেকে কাউকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এরপর আস্তে আস্তে ১৪ দলীয় জোটের সম্পর্ক টানাপোড়নের সৃষ্টি হয়। প্রায়াত মোহাম্মদ নাসিম জীবিত থাকা অবস্থায় ১৪ দলকে কিছুটা হলেও সচল রাখার চেষ্টা করেছিলেন।

কিন্তু তার মৃ’ত্যুর পর তার ১৪ দল একরকম নিষ্ক্রিয়। গত ১০ মাসে ১৪ দলের কোন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়নি। মোহাম্মদ নাসিমের মৃ’ত্যুর পর ১৪ দলের সমন্বয়ক এর দায়িত্ব দেয়া হয় আমির হোসেন আমুকে। কিন্তু আমির হোসেন আমু দায়িত্ব নেয়ার পর এখন পর্যন্ত এখন পর্যন্ত ১৪ দলের কোনো বৈঠক হয়নি।

তবে এখন আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে যে, তারা খুব শীগ্রই ১৪ দলের একটি বৈঠক করার উদ্যোগ নিচ্ছেন। কয়েকটি ইস্যুকে সামনে রেখে তারা সংঘটিত হবেন এবং কিছু কিছু কর্মসূচি পালন করবেন বলে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতা বলেন গতকাল বৈঠকেই অবিলম্বে ১৪ দলের বৈঠক করার ব্যাপারে নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, স’ন্ত্রাস সহিংসতা গণতন্ত্রের সুরক্ষা এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ঊর্ধ্বে তুলে ধরার লক্ষ্যে ১৪ দল আবার সক্রিয় হবে।

শুধু ১৪ দল নয় আওয়ামী লীগের নির্বাচনী শরিক মহাজোটকেও সক্রিয় করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। কারণ গণতন্ত্র বিনাশী যে অপতৎপরতা সেই অপতৎপরতা রুখতে গেলে জনগণকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে বলেই মনে করছে। আর এ কারণে প্রায় বন্ধুহীন অবস্থায় থাকা আওয়ামী লীগ এখন জোট চাঙ্গা করতে সক্রিয় হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষস্থানীয় নেতা বলেন যে, ১৪ দল বা মহাজোট কখনোই নিষ্ক্রিয় হয়নি বা বাতিল হয়ে যায়নি। নানা রকম বাস্তবতার কারণে ১৪ দলের কার্যক্রম সীমিত ছিল। এখন তারা ১৪ দলকে আবারো সক্রিয় করতে চাচ্ছে। আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, ১৪ দলের মূল ভিত্তি হলো আদর্শিক এবং মুক্তিযু’দ্ধের চেতনা ভিত্তিক।

এখন যখন বিএনপি-জামাত গণতন্ত্র ও মুক্তিযু’দ্ধের চেতনাকে আবার ভূলুণ্ঠিত করার চেষ্টা করছে, আবার সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে। তখন ১৪ দল রাজপথে জনগণকে সাথে নিয়ে এর জবাব দিবে। তাই দীর্ঘদিন পর রাজনৈতিক অঙ্গনে কিছুটা হলেও চাঞ্চল্যের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

Sharing is caring!

July 2021
M T W T F S S
« Mar    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  
x